আজ - বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪
Bangla Edition

যে কারণে বাংলাদেশ জিততে পারে এবারের এশিয়া কাপ!


লেখক: Admin
প্রকাশিত হয়েছে: ২৯ অগাস্ট ২০২৩

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা কতটুকু? কেন বাংলাদেশ দলকে ফেভারিট ধরা হচ্ছে? বাংলাদেশ কি প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবে? না এবারও স্বপ্ন ভঙ্গ করবে! কোন কোন দিক থেকে টাইগারদের এগিয়ে রাখা হচ্ছে? আবার, ফেভারিট মনে করা হচ্ছে। বাংলাদেশ দল এবার আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে, প্রস্তুতিটাও হয়েছে বেশ। যে ৫ কারণে বাংলাদেশ এশিয়া কাপ জিততে পারে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।


Image Source: Prothom Alo

২০১২ এশিয়া কাপ বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। সব সমীকরণ মিলিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে টাইগাররা। প্রতিপক্ষ পাকিস্তান স্বপ্ন ভঙ্গের কারণে নীল হয়েছিল বাংলা। সেই রুদ্ধশ্বাস ফাইনাল হেরে গিয়েছিল মাত্র দুই রানের ব্যবধানে। চার বছর ব্যবধানে আবারো ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছিল বাংলাদেশ। সেবারও লক্ষ্য পূরণ হয়নি টাইগারদের।

২০১৮ সালের এশিয়া কাপে ও রানার্সআপ হয়েছে টিম টাইগার্স। দানে দানে তিন দান এবার শিরোপা নিয়ে আসতে চায় টাইগাররা। গৌরবের নতুন আখ্যান লেখার লক্ষ্য। অনেকের মতে সেরা ওয়ানডে দল নিয়ে গেছে শ্রীলঙ্কায়। যদিও ইঞ্জুরির কারণে নেই ওপেনার তামিম ইকবাল। তবে ধারাবাহিকতার অরণ্য নিদর্শন গড়েছে টাইগাররা। আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে দলের ভারসাম্য বেশি আরো ভয়ংকর টাইগাররা।

যে পাঁচ কারণে এশিয়া কাপের সেরা হতে পারে বাংলাদেশ

১. অধিনায়ক সাকিব আল হাসান যিনি সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দেন। যিনি খেলোয়াড়দের থেকে সেরা খেলাটা আদায় করে নেন। তার বুদ্ধিদীপ্ত অধিনায়কত্ব বাংলাদেশ দলের সম্পদ। বলে ব্যাটে দুরন্ত ফর্মে সাকিব আল হাসান। তিনি নিজেই জানিয়েছেন এশিয়া কাপে অনেক দূরে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

২. ওয়ানডে ফরমেট বাংলাদেশের প্রিয়। এই সংস্করণে ধারাবাহিক ক্রিকেট খেলছে বাংলা। প্রতিটি পজিশনে রয়েছে ম্যাচ উইনার। তারা ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারেন। শ্রীলংকান সুপার লিগে রয়েছিল বাংলাদেশের দাপট। এখন পারফর্মটা এশিয়া কাপে ধরিয়ে রাখার পালা।

৩. শক্তিশালী মিডিল অর্ডার নাম গুলো খেয়াল করুন সাকিব আল হাসান তৌহিদ হৃদয় মুশফিকুর রহিম। প্রত্যেকেই রয়েছে সেরা ফরমে।এবং এদের প্রত্যেকে ভাল স্টাইক রেটে ব্যাটিং করছেন। সাকিব বড় শট খেলায় পারদর্শী হয়েছেন। এদিকে তাওহীদ হৃদয় ম্যাচের পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাটিং করেন। রানের চাকা ঘুরে তরতরিয়ে। ছয় মুশফিকুর রহিম এই বছরের ৬০ সেঞ্চুরির কৃতিত্ব গড়েছেন। শুরু থেকেই মেরে খেলার ভূমিকাই থাকবেন মুশফিকুর রহিম।

৪. দুরন্ত পেস অ্যাটাক। ধারাবাহিকতার অনন্য নিদর্শন গড়েছেন পেস বোলিং অ্যাটাক। মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ প্রত্যেকেই নিয়ে গেছেন বিশ্বমানের কাতারে। সেরা ফর্মে রয়েছে তাসকিন। মোস্তাফিজুরের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের জন্য শক্তি বাড়িয়েছে। হাসান মাহমুদ এবং শরীফুল ও নিজেদের প্রমাণ করে চলেছেন।

৫. যুব বিশ্বকাপ ক্রিকেটার দের উপস্থিতি। এই দলের বিশ্বকাপ জিতা খেলোয়ারদের সংখ্যা ৫। শরিফুল ইসলাম, তানজিদ তামিম, তাওহীদ হৃদয়, শামীম পাটোয়ারী এবং তানজিম সাকিব। এ আসরের চাপ নেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে এই ক্রিকেটারদের। সাকিব বিশ্বাস করেন এদেরকে নিয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে বড় কিছু জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের গ্রুপে থাকা অন্য দুই দল শ্রীলংকা এবং আফগানিস্তান। এই গ্রুপ থেকে সুপার ফোরে উঠবে সেরা দুই দল। সুপার ফোর এর সেরা দুই দল খেলবে ফাইনালে। বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ হবে ৩১ শে আগস্ট শ্রীলংকার বিপক্ষে । এর পরের ম্যাচটি হবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে পাকিস্তানের লাহোর স্টেডিয়ামে ৩ সেপ্টেম্বর।

এবার সব দিক দিয়েই বাংলাদেশের সম্ভাবনা রয়েছে এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলার।

ট্যাগ

এশিয়া কাপ

এই সম্পর্কিত আরও পড়ুন


মন্তব্য