আজ - বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪
Bangla Edition

ব্রিকসের নতুন সদস্য তালিকায় বাংলাদেশ নেই কেন?


লেখক: বুলবুল আহমেদ
প্রকাশিত হয়েছে: ২৮ অগাস্ট ২০২৩

সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে অনুষ্ঠিত হলো ব্রিকস সম্মেলন। সম্মেলনটিতে সারা বিশ্বের প্রায় ৬৭ টি দেশকে এখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। আমন্ত্রিত দেশের মধ্যে ছিল ৫৩ টি আফ্রিকান দেশ বলিভিয়া, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া সহ মোট ৬৭ টি দেশ। এই সম্মেলনে ব্রিকস এ নতুন করে আরো কয়েকটি দেশকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।


Image Source: Global Times

সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে অনুষ্ঠিত হলো ব্রিকস সম্মেলন। সম্মেলনটিতে সারা বিশ্বের প্রায় ৬৭ টি দেশকে এখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। আমন্ত্রিত দেশের মধ্যে ছিল ৫৩ টি আফ্রিকান দেশ বলিভিয়া, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া সহ মোট ৬৭ টি দেশ। এই সম্মেলনে ব্রিকস এ নতুন করে আরো কয়েকটি দেশকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।


কিন্তু সদস্য পদ লাভ করতে পারিনি বাংলাদেশ। উক্ত সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই। এ সংগঠনের সদস্য পদ লাভের জন্য অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশ আগ্রহ প্রকাশ করলেও মূলত কি কারনে এ সংগঠনের সদস্য পদ থেকে বিচ্ছিন্ন হলো বাংলাদেশ সেটি এখনো জানা যায়নি।


ব্রিকস কি?

ব্রিকস হলো ৫ টি উন্নয়নশিল দেশের মধ্যে গঠিত একটি অর্থনৈতিক সংগঠন৷ ২০১০ সালের দক্ষিণ আফ্রিকা বিকস এর সদস্যপদ পাওয়ার আগে এই সংগঠনটির নাম ছিল ব্রিক। ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা এই অর্থনৈতিক সংগঠনের সদস্যপদ পাওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকার নামের প্রথম অক্ষর যোগ করে এটি নতুন করে নামকরণ করা হয় ব্রিকস নামে।


মূলত এই সংগঠনটি গঠন করা হয়েছিল উদীয়মান কয়েকটি অর্থনৈতিকভাবে উন্নত দেশকে নিয়ে। এগুলো দেশের মধ্যে রয়েছে সর্বমোট পাঁচটি দেশ ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকা। মূলত ব্রিকস এর নামকরণ করা হয়েছে এই পাঁচটি দেশের প্রথম অক্ষরের দ্বারা। ব্রাজিলের B, রাসিয়ার R, ভারতের I, চায়নার C এবং দক্ষিন আফ্রিকার S নিয়ে BRICS এর নামকরন করা হয়েছিল।


এই সংগঠনের প্রায় সকল দেশ অর্থনৈতিকভাবে অনেকটাই সমৃদ্ধ এবং শিল্পোন্নত। এ সংগঠনের সদস্যপদ লাভ করা দেশগুলোর মধ্যে একটি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং অর্থনৈতিক দিক দিয়ে অনেকটাই সহযোগিতাময় পরিবেশ সৃষ্টি হয় যার কারণে এটির সদস্যপদ লাভ অনেক দেশের কাছেই অনেক গুরুত্বপূর্ণ।


ব্রিকসের নতুন সদস্য দেশ

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে অনুষ্ঠিতব্য ১৫ তম ব্রিকস সম্মেলনে নতুন করে আরো ছয়টি দেশ এই সংগঠনের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। অনেক আগে থেকে এই সম্মেলনে বাংলাদেশ অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথা এবং আশা প্রকাশ করে থাকলেও বাংলাদেশকে এই সংগঠনের ও আওতায় নেওয়া হয়নি।


নতুন করে যে ছয়টি দেশ ব্রিকস এর সদস্য পদ লাভ করেছে সেই ছয়টি দেশ হলো ইরান, আর্জেন্টিনা, মিশর, সৌদি আরব, ইথিওপিয়া এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত। দক্ষিণ আফ্রিকায় উক্ত সম্মেলনে নতুন করে এই ছয়টি দেশের নাম ঘোষণা করা হয় এবং এই ছয়টি দেশ নতুন করে অর্থনৈতিক সংগঠনের সদস্য পদ লাভ করে।


কেন বাংলাদেশ ব্রিকস এর সদস্যপদ পেল না?

নতুন করে ছয়টি দেশ ব্রিকস এর অন্তর্ভুক্ত হলেও সদস্য পদ লাভ করতে পারেনি বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এই অর্থনৈতিক সংগঠনের সদস্য পদ না পাওয়ার ব্যাপার নিয়ে মূলত অর্থনৈতিক মন্দা এবং ভূ রাজনৈতিক বিভিন্ন বিষয়াবলীকে দায়ী করছেন বিশ্লেষকরা।


তবে বাংলাদেশ থেকে সদস্য পদ না পাওয়ার বিষয়ে কোন ধরনের মন্তব্য এখনো করা হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রধানমন্ত্রী সিরিল রামাফোসা নতুন করে ছয়টি দেশের নাম উল্লেখ করেন ব্রিকস এর সদস্য পদে। এবছর জুন মাসে একটি সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডাক্তার একে আব্দুল মোমেন বলেছিলেন আগস্ট মাসে অনুষ্ঠিতব্য ১৫ তম ব্রিকস সম্মেলনে বাংলাদেশ সদস্য পদ পাওয়ার একটি সুযোগ রয়েছে।


কিন্তু এই সম্মেলনে বাংলাদেশকে সদস্যদের দেওয়া হয়নি এর বিষয়ে এখন অবধি বাংলাদেশ থেকে কারণ দেখানো না হলেও নির্দিষ্ট সময় পর এ ব্যাপারে জানা যাবে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।


অর্থনৈতিক সমৃদ্ধশীল পাঁচটি দেশ নিয়ে গঠিত হয় মূলত ব্রিকস যেখানে ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মত উন্নয়নশীল দেশগুলো সম্পৃক্ত রয়েছে। এই সংগঠনে আবারও যুক্ত করা হলো নতুন ৬ টি দেশ। অনেক আগে থেকে এটির সদস্য পদ নিয়ে বাংলাদেশ আশাবাদী থাকলেও অবশেষে এই সংগঠনের সদস্যপদ পেল না বাংলাদেশ।


১৫ তম এই সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে অংশগ্রহণ করেছিল কিন্তু এরপরেও কি কারনে মূলত বাংলাদেশকে এই সংগঠনের আওতায় নেওয়া হলো না সেটি এখনো জানা যায়নি। তবে নির্দিষ্ট একটি সময় পর এই ব্যাপারে জানা যাবে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

ট্যাগ

ব্রিকস

এই সম্পর্কিত আরও পড়ুন


মন্তব্য