আজ - বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪
Bangla Edition

ভারত কি তবে এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপ দুইটাই জিতবে?


লেখক: বুলবুল আহমেদ
প্রকাশিত হয়েছে: ৩০ অগাস্ট ২০২৩

তবে কি ভারত এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপ দুটিই নিবে? এশিয়া কাপে ভারত টিম নিজেদেরকে চ্যাম্পিয়ন এর দিকে কতটা এগিয়ে রাখছে? তবে কি এবারের বিশ্বকাপ বিজয়ী দল ভারত? তবে কি এবারের এশিয়া কাপ বিজয়ী দল ভারত?



শুরু হয়ে গেছে এশিয়া কাপ। আরে এশিয়া কাপের প্রস্তুতি হিসেবে অনেক আগে থেকে প্লেয়াররা নিজেদের ঝালিয়ে নিয়েছে। এদিকে ওডিআই র‍্যাংকিং এ তিন নাম্বারে থাকা ইন্ডিয়া দল তাদের ১৭ সদস্যের নাম ঘোষণা করেছে। এই ১৭ সদস্য দল এরমধ্যে যে সকল ব্যাটসম্যানরা রয়েছে অথবা বলার রয়েছে তারা অবশ্যই বিশ্বসেরা বলা যুক্তিযুক্ত।

ভারতের এই দলের সাথে বিশেষ করে এশিয়ার দলের মধ্যে টক্কর দেওয়ার দল থাকলেও কনফিডেন্স নিয়ে তাদের বিপক্ষে খেলার মত দল খুব কমই চোখে পড়বে। তবে এবার যে এশিয়া কাপ অনেকটাই লড়াকু হবে এটি বলা যেতেই পারে। এরই মধ্যে ভারত জয় করেছে চাঁদের দেশ তাদের চন্দ্রজান দ্বারা। তবে কি এবার এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপ এই দুইটাই ভারত দলের হতে চলেছে সেটি দেখার জন্য এখন সময়ের ব্যাপার।

সারা বিশ্বের যতগুলো ক্রিকেট দল রয়েছে তাদের মধ্যে ভারতকে অবশ্যই প্রথম সারিতে রাখতে হয়। কারণ যে কোন দলকে যেকোনো সময় হারিয়ে দেওয়ার মত ক্ষমতা এই দল রাখে। এমনকি অনেক খারাপ পরিস্থিতির ম্যাচ মোর ঘুরিয়ে নিজেদের দখলে নিয়ে আসতে পারে ভারত দল। পারবে না বা কেন? তাদের রয়েছে বিশ্বমানের বলার এবং বিশ্ব ম্যানের ব্যাটসমান যারা নিমিষেই ঘুরিয়ে দিতে পারে যে কোন ম্যাচ এর পরিস্থিতি।

এশিয়া কাপে ভারত মোট অংশগ্রহণ করেছে ১৪ বার এর মধ্যে ভারত শিরোপা অর্জন করেছে সাত বার এবং রানার্সআপ হয়েছে ৩ বার৷ এদিক দিয়ে দেখতে গেলে সব দলের চেয়ে এগিয়ে আছে ভারত তাই এবারের শিরোপাতে ভারতকে এগিয়ে রাখাটাই স্বাভাবিক।
আর ভারত যদি ফাইনালে ওঠে যায় তবে তাদের জেতার পার্সেন্টেজ অনেকটাই বেড়ে যায় যা সাম্প্রতিক সময়ের প্রেডিকশন থেকে দেখা গিয়েছে। ভারত এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠলে ৭০% শিরোপা জিতার সম্ভাবনা থাকে ভারতের।

ওডিআই র‍্যাংকিং এ ভারতের বর্তমান অবস্থা রয়েছে ৩ নাম্বারে এবং চলতি বছরে ভারত সর্বমোট ম্যাচ খেলেছে ১২ টি যার মধ্যে ৯ টিতে তারা সাফল্যের সাথে বিজয় অর্জন করেছে। এদিক দিয়ে দেখতে গেলেও ভারতের টিমের বর্তমান খেলোয়ারদের পারফরম্যান্স অনেকটাই স্বস্তিদায়ক যা মূলত এশিয়া কাপ এবং ২০২৩ বিশ্বকাপ এ ভারতের অনুপ্রেরণার কারণ হিসেবে দেখা যাবে।

এদিকে ভারত রয়েছে গ্রুপ পর্বের এ দলে, এ দলে ভারতের প্রতিপক্ষ টিম হলো ভারতের দীর্ঘ প্রতিদ্বন্দ্বী দল পাকিস্তান এবং নেপাল। পাকিস্তানের সাথে ম্যাচটি যদি ভারত কোনভাবে জিতে যায় তবে নেপালের সাথে ম্যাচটি অনেকটা একতরফা হবে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। কারণ ভারতের বিপক্ষে নেপালের লড়াইয়ের দিক দিয়ে শক্তি অনেকটা কম।

এশিয়ার মাটিতে ভারতের পারফর্ম বরাবরই ভালো হয়ে থাকে। আর এশিয়া কাপে গত কয়েক বছর ধরে ভারতের রাজত্ব পরিলক্ষনীয়। তাই এশিয়া কাপে ভারতকে এগিয়ে রাখাটাই স্বাভাবিক বলে মনে হয়। ক্রিকেট বিশ্লেষক বলুন অথবা প্রেডিকশন কারী বলুন ভারতের এই ১৭ সদস্যের টিম দেখে যে কেউ ভারত দলকে এগিয়ে রাখবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আসল কথা হলো এশিয়া কাপের সাথে কি ভারত আবারও ২০১১ সালের মতো বিশ্বকাপটিও নিজেদের করে নিতে চলেছে?

২০১১ সালে ভারত নিজেদের দেশে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে ক্যাপ্টেন ধনী নেতৃত্বে এবং পুরো টিমের সফল প্রচেষ্টায় বিশ্বকাপ অর্জন করেছিল। তারপর থেকে আর বড় ধরনের কোন সাফল্য এনে দিতে পারেনি ভারতীয় ক্রিকেট দল। তবে এর মাঝখানে এশিয়া কাপে ভারতীয় ক্রিকেট দল নিজেদের বিস্তার সবার মাঝে তুলে ধরতে পেরেছে এবং এশিয়া কাপ অর্জন করেছে।

কিন্তু তাদের বর্তমান সময়ের সাপেক্ষে এশিয়া কাপরনের পাশাপাশি বিশ্বকাপ অর্জন কতটা যৌক্তিক সেটি শুধু অপেক্ষার বিষয়। তবে বিশ্বকাপ বলুন অথবা এশিয়া কাপ বলুন আর যে কোন টুর্নামেন্টে ভারতীয় এমন বিধ্বংসী দলকে অবশ্যই এগিয়ে রাখাটা বুদ্ধিমানের কাজ। এবং শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবে ভারতীয় দলকে সবসময় সামনে থেকে দেখা উচিত যে কোন দেশের ক্রিকেট দলের।

বর্তমান সময়ে যে সকল দেশের ক্রিকেটাররা নিজেদের ফর্মের তুঙ্গে রয়েছে তার মধ্যে ভারতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররা উল্লেখযোগ্য। বিরাট কোহলি, শুভমান গিল, হার্দিক পান্ডিয়া, লোকেশ রাহুল, এ সকল ব্যাটসম্যানরা যে কোন ম্যাচ নিজেদের পক্ষে ঘুরিয়ে নিতে সক্ষম।

অপরদিকে তাদের রয়েছে বিশ্বসেরা বলার জাসপ্রিত বুমরাহ এবং তাকে সঙ্গ দিবে প্রসিধ কৃষ্ণা এবং শার্দুল ঠাকুরের মতো অভিজ্ঞ এবং মানসম্মত বলার রা যারা যে কোন মুহূর্তে ম্যাচের চেহারা পাল্টে দিতে সক্ষম। তাই এশিয়া কাপ এবং বিশ্বকাপে ভারত যে অনেক ভালো কিছু করতে চলেছে সেটি অজানা কিছু না।

ট্যাগ

এশিয়া কাপ

এই সম্পর্কিত আরও পড়ুন


মন্তব্য